আমাদের টাইপ করা বইগুলোতে বানান ভুল রয়ে গিয়েছে প্রচুর। আমরা ভুলগুলো ঠিক করার চেষ্টা করছি ক্রমাগত। ভুল শুধরানো এবং টাইপ সেটিং জড়িত কাজে সহায়তা করতে যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে।
আল্লাহর খিলাফত প্রতিষ্ঠার পদ্ধতি প্রিন্ট কর ইমেল
লিখেছেন অধ্যাপক গোলাম আযম   
Wednesday, 12 July 2006
আর্টিকেল সূচি
আল্লাহর খিলাফত প্রতিষ্ঠার পদ্ধতি
আল্লাহর একচ্ছত্র রাজত্ব
মানুষের ইসলাম
খিলাফতের দায়িত্বটা কী
খিলাফতের দায়িত্বের বিভিন্ন দিক

আল্লাহর একচ্ছত্র রাজত্ব

আল্লাহ তাআলা সূরা আলে ইমরানের ৮৩ নং আয়াতে দাবি করেছেন যে, আসমান ও যমীনে যা কিছু আছে সবই বাধ্য হয়ে আল্লাহর বিধান মেনে চলে। আয়াতের শুরুতে তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, মানুষকে আল্লাহর বিধান মানতে বাধ্য করেননি বলেই কি মানুষ আল্লাহর বিধান (দীন) ছাড়া অন্য বিধান তালাশ করে?

আল্লাহ তাআলা তাঁর ছোট-বড় সকল সৃষ্টির জন্যই বিধি-বিধান তৈরি করেছেন। এটম থেকে সূর্য পর্যন্ত, ঘাস থেকে বৃক্ষ পর্যন্ত, পিঁপড়া থেকে হাতি পর্যন্ত সকল জড় পদার্থ ও জীবজন্তুর উপযোগী নিয়ম-কানুন তৈরি করেছেন। এ সব নিয়ম-বিধান তিনি নবীর মাধ্যমে জারি করেন না। তিনি নিজে সরাসরি প্রতিটি সৃষ্টির উপর ঐ সৃষ্টির উপযোগী বিধান চালু করেন। উপরিউক্ত আয়াতে এ কথাটিকে আল্লাহ যে ভাষায় প্রকাশ করেছেন তা হল:

অর্থ: আসমান-যমীনে যত কিছু আছে সবই ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় তাঁর নিকট আত্মসমর্পণ করেছে।

এখানে اَسْلَمَ শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। এর অর্থ ইসলাম গ্রহণ করেছে বা আত্মসমর্পণ করেছে। সকল সৃষ্টিই বাধ্য হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছে। কোন সৃষ্টিই স্বাধীন নয় এবং আল্লাহর বিধান বাদ দিয়ে নিজের মর্জিমত চলতে সক্ষম নয়। গোটা সৃষ্টিলোকে আল্লাহর আরোপিত বিধানের কঠোর রাজত্ব কায়েম রয়েছে। বিজ্ঞানের যত উন্নতি হচ্ছে ততই এ কথা প্রমাণিত হচ্ছে। প্রকৃতির জগতে যে নিয়ম চিরন্তনভাবে চালু আছে তা আল্লাহরই রচিত, মানুষের রচিত নয় – এ কথা অস্বীকার করার অবকাশ নেই।

ঐ আয়াতের মর্ম অনুযায়ী ইসলামের সংজ্ঞা দাঁড়ায় নিম্নরূপ:

“সৃষ্টির জন্য স্রষ্টার রচিত বিধানই ইসলাম।” যে সৃষ্টির জন্য যে বিধান দেওয়া হয়েছে, সেটাই ঐ সৃষ্টির ইসলাম। প্রত্যেক সৃষ্টি আল্লাহর বিধান মেনে চলছে বলেই বলা যায় যে, প্রত্যেকেই ইসলাম গ্রহণ করেছে। অবশ্য তারা বাধ্য হয়েই ইসলাম গ্রহণ করে থাকে।‍


সর্বশেষ আপডেট ( Sunday, 15 August 2010 )