সিয়াম: রোযাদারের ঢাল স্বরূপ প্রিন্ট কর ইমেল
লিখেছেন মুহাম্মাদ সাইফুল্লাহ আহমাদ কারীম   
Sunday, 21 September 2008
আর্টিকেল সূচি
সিয়াম: রোযাদারের ঢাল স্বরূপ
সিয়াম সংক্রান্ত কিছু মাসলা- মাসায়েল

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম

সমস্ত প্রশংসা বিশ্বজাহানের একমাত্র প্রতিপালক আল্লাহর জন্য। যিনি রামাদান মাসে পবিত্র কুরআন নাযিল করেছেন, এবং এ মাসের সিয়াম আমাদের উপর ফরয করে দিয়েছেন। সালাত ও সালাম আমাদের নবী মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রতি এবং তার পরিবার-পরিজন ও সকল সাহাবীর প্রতি।

পবিত্র রামাদান মাসের ফযিলত:
রামাদান মাসের অনেক ফযিলত ও মর্যাদার কথা পবিত্র কুরআনুল কারীম ও রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর সহিহ হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, নিম্নে এ প্রসঙ্গে কিছু কথা আমরা তুলে ধরলাম:

১. এ মাসে আল্লাহ তাআলা মহাগ্রন্থ আল কুরআন নাযিল করেছেন:
আল্লাহ তা'আলা বলেনঃ
يقول الله عز وجل: "شَهْرُ رَمَضَانَ الَّذِي أُنْزِلَ فِيهِ الْقُرْآنُ هُدىً لِلنَّاسِ وَبَيِّنَاتٍ مِنَ الْهُدَى وَالْفُرْقَانِ فَمَنْ شَهِدَ مِنْكُمُ الشَّهْرَ فَلْيَصُمْهُ
রামাদান মাস; যাতে কুরআন নাযিল করা হয়েছে মানুষের হেদায়াতের জন্য, এবং সত্য-মিথ্যার পার্থক্যকারী ও হেদায়াতের সুস্পষ্ট প্রমাণাদিসহ। সুতরাং তোমাদের মাঝে যে এ মাসে উপনীত হবে সে যেন এ মাসের রোযা রাখে।

২. এ মাসে যে ব্যক্তি রোযা রাখবে তার পূর্ববর্তী সকল গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে, অপর বর্ণনায় এসেছে: এমনকি পরবর্তী সকল গুনাহও।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
من صام رمضان إيمانا واحتسابا غفر له ما تقدم من ذنبه وفي رواية: وما تأخر.
যে ব্যক্তি ঈমান ও ইহতেসাবের (সওয়াবের আশায়) সাথে রামাদান মাসের রোযা রাখল তার পূর্ববর্তী সকল গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে। অপর বর্ণনায় এসেছে এবং পরবর্তী সকল গুনাহও।

৩. এ মাসের রোযা রাখা একাধারে বছরের দশ মাস রোযা রাখার সমান:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
صيام شهر رمضان بعشرة أشهر وصيام ستة أيام بشهرين فذلك صيام السنة
রামাদানের রোযা দশ মাসের রোযার সমতূল্য, ছয় রোযা দু'মাসের রোযার সমান, এ যেন সারা বছরের রোযা।

৪. এ মাস বরকতময় মাস:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
أتاكم شهر رمضان شهر مبارك فرض الله عليكم صيامه...
তোমাদের কাছে এসেছে রামাদান মাস, বরকতময় মাস। আল্লাহ তোমাদের উপর এর সিয়াম ফরয করেছেন।

৫. এ মাসের প্রত্যেক রাতেই আল্লাহর পক্ষ হতে আহ্বানকারী কল্যাণের দিকে আহবান করে।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
وينادي مناد كل ليلة يا باغي الخير هلم ويا باغي الشر أقصر....
এ মাসের প্রত্যেক রাতেই আল্লাহর পক্ষ হতে আহ্বানকারী ডেকে ডেকে বলে, 'হে কল্যাণ কামনাকারী, কল্যাণের দিকে এগিয়ে আস। হে অনিষ্টের অগ্রযাত্রী, থেমে যাও।'

৬. এ মাস সবর বা সহিষ্ণুতার মাস:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
وعن ابن عباس رضي الله عنهما قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: صوم شهر الصبر وثلاثة أيام من كل شهر يذهبن وحر الصدر. رواه البزار ورجاله رجال الصحيح، قال الشيخ الألباني: حسن صحيح .
ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণিত এ হাদীসে রামাদান মাসকে সবরের মাস হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেনঃ "সবরের মাসে রোযা রাখা ও প্রত্যেক মাসে তিনদিন রোযা রাখা অন্তরের অস্থিরতা দূর করে থাকে।" [বায্যার, আলবানী বলেন হাসান-সহীহ]

৭. এ মাসের প্রথম রাত হতে জাহান্নামের দরজাসমূহ বন্ধ করে দেয়া হয় এবং জান্নাতের গেটসমূহ উন্মুক্ত করে দেয়া হয়।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
وغلقت أبواب النار فلم يفتح منها باب وفتحت أبواب الجنة فلم يغلق منها باب
এ মাসের সম্মানার্থে এবং রোযাদারদের সম্মানে আল্লাহ্‌ তা'আলা জান্নাতের দরজাসমূহ খুলে দেন এবং জাহান্নামের দরজা সমূহ বন্ধ করে দেন।

৮. এ মাসে দুষ্ট জিন এবং শয়তানকে শিকলাবদ্ধ করা হয়:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
قال صلى الله عليه و سلم: إذا كانت أول ليلة من رمضان صفدت الشياطين ومردة الجن

৯. এ মাসের প্রত্যেক রাতেই একদল লোককে জাহান্নাম হতে মুক্তি দেয়া হয়।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সহিহ হাদীসে ইরশাদ করেন:
ولله عتقاء من النار وذلك كل ليلة " .
অর্থাৎ এ মাসের প্রত্যেক রাতেই আল্লাহ্‌ তা'আলা জাহান্নাম হতে একদল লোককে মুক্তি দিয়ে থাকেন।

১০. এ মাসে উমরা করা হাজ্জের সমপরিমাণ বা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে হাজ্জ করার সমান।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
عن ابن عباس قال : قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : " إن عمرة في رمضان تعدل حجة " الحديث متفق عليه
"রামাদানে উমরা করা হাজ্জের সমপরিমাণ।" ইবনে আব্বাস হতে বর্ণিত।

১১. এ মাসে রয়েছে লাইলাতুল কাদর যা হাজার মাসের চেয়েও উত্তম:
আল্লাহ তা'আলা সুরাতুল কাদরে বলেন:
لَيْلَةُ الْقَدْرِ خَيْرٌ مِنْ أَلْفِ شَهْرٍ
"কাদরের রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।"
এর অর্থ হচ্ছে- এতে ইবাদত করা এবং নেক আমল করা হাজার মাস ইবাদত ও নেক আমল করার চেয়ে উত্তম। এর অর্থ এই নয় যে, কেবল এ রাত জেগে থাকাটাই হাজার মাসের ইবাদত বা আমলের চেয়ে উত্তম।


সিয়াম পালনের মর্যাদা ও ফযিলত:

১. সিয়াম রোযাদারের জন্য জাহান্নামের আগুন থেকে ঢালস্বরূপ:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
قال صلى الله عليه و سلم: الصيام جنة من النار فمن أصبح صائما فلا يجهل يومئذ وإن امرؤ جهل عليه فلا يشتمه ولا يسبه وليقل إني صائم
রোযা জাহান্নাম হতে ঢাল স্বরূপ। সুতরাং তোমাদের কেউ যখন রোযা রাখবে তখন সে যেন বাড়াবাড়ি না করে। যদি কোন মানুষ তার উপর বাড়িবাড়ি করে বা চড়াও হয়, তবুও সে তাকে গালিগালাজ করবে না। বরং সে বলবে, 'আমি রোযাদার।'

২. সিয়াম রোযাদারের জন্য কিয়ামতের দিন সুপারিশ করবে:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
قال صلى الله عليه وسلم: الصيام والقرآن يشفعان للعبد يوم القيامة يقول الصيام أي رب إني منعته الطعام والشهوات بالنهار فشفعني فيه يقول القرآن رب منعته النوم بالليل فشفعني فيه فيشفعان. قال الشيخ الألباني: صحيح، انظر حديث رقم: 3882 في صحيح الجامع
"কিয়ামতের দিন রোযা এবং কুরআন বান্দার জন্য সুপারিশ করবে। রোযা বলবে, 'হে রব! আমি তাকে দিনের বেলায় পানাহার ও প্রবৃত্তির কামনা হতে বাধা দিয়েছি; সুতরাং তার ব্যাপারে আমার সুপারিশ কবুল করুন। কুরআন বলবে, 'আমি তাকে রাতের বেলায় ঘুমাতে দেয়নি; সুতরাং তার ব্যাপারে আমার সুপারিশ গ্রহন করুন। ফলে এ দু'য়ের সুপারিশ গ্রহণ করা হবে।"

৩. রোযাদারের জন্য জান্নাতে একটি বিশেষ গেট রয়েছে যা দিয়ে কেবল রোযাদাররা প্রবেশ করবে:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
ومن كان من أهل الصيام دعي من باب الريان
"আর যে ব্যক্তি রোযাদার হবে তাকে রাইয়ান নামক দরজা হতে ডাকা হবে।"
তিনি আর ও বলেনঃ
و قال صلى الله عليه وسلم: إن في الجنة بابا يقال له الريان يدخل منه الصائمون يوم القيامة لا يدخل منه أحد غيرهم يقال أين الصائمون فيقومون فيدخلون منه فإذا دخلوا أغلق فلم يدخل منه أحد.
জান্নাতে একটি গেট রয়েছে যার নাম হচ্ছে রাইয়ান। এ দরজা দিয়ে কিয়ামতের দিন কেবলমাত্র রোযাদাররা প্রবেশ করবে। তারা ছাড়া আর কেউ এ দরজা দিয়ে প্রবেশ করবে না। ঘোষণা করা হবে, 'রোযাদাররা কোথায়?' তখন তারা উঠে আসবে এবং এ দরজা দিয়ে প্রবেশ করবে। তারা প্রবেশ করার পর দরজা বন্ধ করে দেয়া হবে, আর কেউ এ গেট দিয়ে প্রবেশ করবে না।

৪.রোযা ব্যক্তির পরিবার ও সম্পদের ফেৎনার কাফ্ফারা স্বরূপ:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
قال صلى الله عليه وسلم: فتنة الرجل في أهله وماله ونفسه وولده وجاره يكفرها الصيام والصلاة والصدقة والأمر بالمعروف والنهي عن المنكر.
রোযা, নামায, সাদকা, সৎকাজের আদেশ ও অসৎ কাজ হতে নিষেধ ব্যাক্তিকে তার পরিবার, সম্পদ, জীবন, সন্তান- সন্ততি এবং প্রতিবেশীর ফেতনা হতে মুক্ত রাখে।

৫. রোযার প্রতিদান ও সাওয়াব আল্লাহ তাআলা নিজেই দিবেন:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদীসে কুদসিতে ইরশাদ করেন:
قال الله عز وجل: كل عمل ابن آدم له إلا الصوم فإنه لي وأنا أجزي به
আল্লাহ তাআলা বলেনঃ আদম সন্তানের সমস্ত আমল তার জন্য রোযা ছাড়া, রোযা আমার জন্য আমি রোযার প্রতিদান দেব।

৬. আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে একদিনের রোযা ঔ রোযাদারকে জাহান্নাম হতে ৭০ বছরের দূরত্বে সরিয়ে নেয়।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
ما من عبد يصوم يوما في سبيل الله ابتغاء وجه الله إلا باعد الله عن وجهه وبين النار سبعين خريفا.
যে বান্দাহ আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের নিমিত্তে আল্লাহর রাস্তায় একদিন রোযা রাখে আল্লাহ তার মাঝে এবং জাহান্নামের মাঝে ৭০ বছরের দূরত্ব তৈরী করেন।

৭. রোযাদারের জন্য জান্নাতে কিছু রুম রয়েছে যার ভেতর থেকে বাইরে এবং বাইর থেকে ভেতরে দৃষ্ট হয়:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
قال صلى الله عليه وسلم: إن في الجنة غرفا يرى ظاهرها من باطنها وباطنها من ظاهرها أعدها الله تعالى لمن أطعم الطعام وألان الكلام وتابع الصيام وصلى بالليل والناس نيام.
জান্নাতের মধ্যে কিছু কক্ষ রয়েছে যার ভেতর থেকে বাইরে এবং বাইর থেকে ভেতরে দেখা যায় আল্লাহ তাআলা তাদের জন্য এসব প্রস্তুত করেছেন যারা লোকদের খাবার খেতে দেয়, নরম কথা বলে, একাধারে সিয়াম পালন করে, যখন মানুষ ঘুমিয়ে থাকে রাত জেগে নামায আদায় করে।

৮. রোযাদারের মুখের গন্ধ আল্লাহর কাছে মেসকের চেয়েও সুগন্ধময়:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
والذي نفس محمد بيده لخلوف فم الصائم أطيب عند الله من ريح المسك
সে সত্ত্বার কসম, যার হাতে আমার জীবন,রোযাদারের মুখের গন্ধ আল্লাহ তাআলার কাছে মেসকের সুগন্ধির চেয়েও উত্তম।

৯. রোযা কবরে ডান দিক থেকে রোযাদারকে পাহারা দেবে।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন: অত:পর তার ডান দিক হতে রোযা এসে উপস্থিত হবে ....... আর রোযা বলবে আমার এদিক হতে তোমাদের কোন পথ নেই। অর্থাৎ রোযা আল্লাহর বান্দা রোযাদারকে ডান দিক হতে পাহারা দিতে থাকবে।

১০. রোযাদারের জন্য দুটি আনন্দ রয়েছে:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
وللصائم فرحتان يفرحهما إذا أفطر فرح بفطره وإذا لقي ربه فرح بصومه.
রোযাদারের জন্য দু'টি খুশি রয়েছে,যাতে সে আনন্দ করবে, যখন সে ইফতার করবে, যখন সে তার রবের সাথে সাক্ষাৎ করবে।

১১. রোযাদারের দোআ আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
إن للصائم عند فطره لدعوة ما ترد ( ابن ماجة: 1743)
রোযাদার ইফতারের সময় যে দোআ করেন তা ফেরত দেয়া হয় না অর্থাৎ, তার দোআ কবুল করা হয়।

কিয়ামু রামাদান বা রামাদানের তারাবীহের ফযিলত:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
عن أبي هريرة أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: من قام رمضان إيمانا واحتسابا غفر له ما تقدم من ذنبه . قال الشيخ الألباني : صحيح
যে ব্যক্তি ঈমান ও ইহতেসাবের সাথে রামাদানের তারাবীহ আদায় করল তার পূর্বের সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অন্য এক হাদীসে এভাবে ইরশাদ করেছেন:
فقال إن الرجل إذا صلى مع الإمام حتى ينصرف حسب له قيام ليلة. قال الشيخ الألباني: الحديث صحيح انظر: صحيح سنن أبي داود
যখন কোন ব্যক্তি ইমামের সাথে ইমাম তার নামায শেষ করা পর্যন্ত নামায আদায় করবে তার জন্য তা সারা রাত জেগে ইবাদত করা হিসেবে গণ্য হবে।
শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া (রহঃ) বলেনঃ কিয়ামু রামাদান বা তারাবীহের নামাযের নির্দিষ্ট কোন রাকা'আত নেই, এ নামায মূলত: রাতের নামাযের মত, দু' রাকা'আত দু' রাকাআত করে যথাসম্ভব পড়তে থাকবে। ফজর উদিত হওয়া পর্যন্ত এ নামায পড়া যেতে পারে, তবে কোন মসজিদে কোন একজন ইমামের পেছনে ইমাম তাঁর নামায শেষ করা পর্যন্ত পড়া এ ক্ষেত্রে উত্তম।

রামাদানের শেষ দশ রাতের অতিরিক্ত ফযিলত:
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে সহিহ হাদীসে সাব্যস্ত আছে:
كان يعتكف العشر الأواخر من رمضان حتى قبضه الله
তিনি মৃত্যু পর্যন্ত রামাদান মাসের শেষ দশ রাত নিয়মিত ই'তেকাফ করতেন।
আর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
تحروا ليلة القدر في الوتر من العشر الأواخر من رمضان
তোমরা রামাদানের শেষ দশের বেজোড় রাত গুলিতে লাইলাতুল কাদর তালাশ কর। এ হাদীস হতে প্রমাণিত যে, লাইলাতুল কাদর রামাদানের শেষ দশ রাতের মধ্যে রয়েছে।

লাইলাতুল ক্বাদর এর বিশেষ ফযিলত:
আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেনঃ
قال تعالى: إِنَّا أَنْزَلْنَاهُ فِي لَيْلَةِ الْقَدْرِ. وَمَا أَدْرَاكَ مَا لَيْلَةُ الْقَدْرِ. لَيْلَةُ الْقَدْرِ خَيْرٌ مِنْ أَلْفِ شَهْرٍ. تَنَزَّلُ الْمَلائِكَةُ وَالرُّوحُ فِيهَا بِإِذْنِ رَبِّهِمْ مِنْ كُلِّ أَمْرٍ. سَلامٌ هِيَ حَتَّى مَطْلَعِ الْفَجْرِ.
আমরা লাইলাতুল কাদরে তা (কুরআন) নাযিল করেছি, আপনি কি জানেনলাইলাতুল কাদর কি?লাইলাতুল কাদর হাজার মাসের চেয়ে উত্তম, এতে ফিরেশতাকূল ও জিবরিল তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে সকল বিষয় নিয়ে অবতীর্ণ হয়, ফজর উদিত হওয়া পর্যন্ত ইহা শান্তিময়।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন:
قال صلى الله عليه وسلم: من قام ليلة القدر إيمانا واحتسابا غفر له ما تقدم من ذنبه.
যে ব্যক্তি ঈমান ও ইহতেসাবের সাথে লাইলাতুল কাদর জেগে ইবাদত করল তার পূর্বের সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে।
উম্মুল মু'মিনীন আয়েশা রা. হতে বর্ণিত:
يا رسول الله أرأيت إن وافقت ليلة القدر ما أدعو قال تقولين اللهم إنك عفو تحب العفو فاعف عني قال الشيخ الألباني: الحديث صحيح.
হে আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমি যদি লাইলাতুল কাদর পাই কি দোআ করব? তিনি বলেন তুমি বলবে:
اللهم إنك عفو تحب العفو فاعف عني



সর্বশেষ আপডেট ( Thursday, 26 August 2010 )