আমাদের টাইপ করা বইগুলোতে বানান ভুল রয়ে গিয়েছে প্রচুর। আমরা ভুলগুলো ঠিক করার চেষ্টা করছি ক্রমাগত। ভুল শুধরানো এবং টাইপ সেটিং জড়িত কাজে সহায়তা করতে যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে।
চরিত্র গঠনের মৌলিক উপাদান প্রিন্ট কর ইমেল
লিখেছেন নঈম সিদ্দিকী   
Friday, 01 June 2007
আর্টিকেল সূচি
চরিত্র গঠনের মৌলিক উপাদান
আল্লাহর সাথে যথাযথ সম্পর্ক
সংগঠনের সাথে সম্পর্ক
সহযোগীদের সাথে সম্পর্ক

সংগঠনের সাথে সম্পর্ক

কোন দলের সাংগঠনিক ব্যবস্থা যদি ঢিলে থাকে এবং এ অবস্থায় সে কোন বিরাট অভিযানে অংশগ্রহণ করে তাহলে তার অবস্থা হয় ঠিক এমন একটি মোটর গাড়ীর ন্যায়, যার কলকব্জাগুলো ভালভাবে আঁটা হয়নি, অথচ ড্রাইভার এ গাড়ী নিয়ে পার্বত্য পথ অতিক্রম করার জন্য বের হয় এবং পদে পদে অসুবিধার সম্মুখীন হয় এমনকি গাড়ীর মেশিন একেবারে অচল হয়ে পড়ে।

সংগঠন প্রত্যেক দলের একটি স্বাভাবিক প্রয়োজন। কিন্তু আমাদের নিকট তা কেবল একটি স্বাভাবিক প্রয়োজনই নয় বরং আমাদের দ্বীনদারী, নৈতিকতা, আল্লাহর ইবাদত ও রাসুলের আনুগত্যেরই মূর্তপ্রকাশ। সাংগঠনিক দুর্বলতা কাজের পথে নানান অসুবিধার র্সষ্টি করে। তাই বিভিন্ন দল এই দুর্বলতা দূর করার জন্য চেস্টা করে। কিন্তু আমরা মনে করি য়ে, এটা আমাদের পরকালীন ক্ষতির কারণ হবে। এ উদ্দেশ্যে আমরা একে হামেশা পরিত্যাজ্য মনে করি। তাই সংগঠন শৃংঙ্খলাকে মজবুত করা এবং প্রত্যেক সহযোগীকে এর প্রহরায় নিযুক্ত হওয়া নিজের দায়িত্ব মনে করা অপরিহার্য। সংগঠন সম্পর্কে এখানে কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের অবতারণা করছি।

১। আদেশ ও আনুগত্যের ভারসাম্য সংগঠনের মেরুদণ্ড। এ ভারসাম্য ছাড়া আদতে সংগঠনের অস্তিত্ব অর্থহীন। এ জন্যই এ আদেশ আনুগত্যের ভারসাম্য নষ্ট করা গুনাহ করার শামিল। অর্থাৎ এটা হচ্ছে আল্লাহ ও রাসুলের (স) নাফরমানী। এ অপরাধ অনুষ্ঠানের পর মানুষ দুনিয়া ও আখেরাতে সাফল্য লাভ করতে পারে না। কুরআনের দাবী হচ্ছেঃ
اَطـِعُـوا اَللهَ وَاَطـِعـُوا الـرَسـُولَ وَ اُولِـى الاَمـرِ مَنكَـم-
অর্থাৎ “আল্লাহর আনুগত্য কর, রাসুলের আনুগত্য কর এবং আনুগত্য কর তোমাদের মধ্য থেকে কর্তৃত্বশীলদের।”-সুরা নিসা, আয়াতঃ৫৮

মনে রাখবেন এ তিনটি আনুগত্য হচ্ছে ওয়াজিব। এর মধ্য থেকে কোন একটির আনুগত্য পরিহার করলে মুসলমান ক্ষতির সম্মুখীন হয়। রাসুলুল্লাহ (স) নিজেই বলেছেনঃ “যে ব্যক্তি আমার আনুগত্য করে, সে আল্লাহর আনুগত্য করে এবং যে আমার নাফরমানী করে, সে আল্লাহর নাফরমানী করে। আর যে আমার (অর্থাৎ রাসূলের নিযুক্ত অথবা তাঁর আনুগত্যকারী) আমীরের আনুগত্য করে, সে আমার আনুগত্য করে এবং যে আমার আমীরের নাফরমানী করে, সে আমার নাফরমানী করে।”

হযরত আবু হুরায়রার (রাঃ) একটি বাণী এ কথাটিকে আরো সুস্পষ্ট করে। তিনি বলেছেন ঃ “এ কথা সন্দেহাতীত সত্য যে, নেতৃবৃন্দের আনুগত্য আল্লাহর আনুগত্য এবং তাদের নাফরমানী আল্লাহর নাফরমানীর নামান্তর।”

এই প্রসঙ্গে হাদীসের পুস্তকসমূহে চুড়ান্ত নির্দেশসম্বলিত অসংখ্য হাদীস বর্ণিত হয়েছে। এই হাদীসগুলোর বক্তব্য হচ্ছে এই যে, ইসলামী রাষ্ট্র পরিচালনা বা দ্বীন প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের জন্য ইসলামী আইন ও সংবিধানের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত সংগঠনের যে সকল লোককে ইসলামী নেতৃত্বের বিশিষ্ট গুণাবলীর পরিপ্রেক্ষিতে উন্নত মানের ইল্ম ও তাকওয়ার অধিকারী হবার কারণে নেতৃত্বের পদে নির্বাচন করা হয়, সৎকর্মসমূহে তাদের আনুগত্য করা শরিয়তের অত্যাধিক গুরুত্বপূর্ণ ফরজ ও ওয়াজিবসমূহের অর্ন্তভূক্ত।

এজন্য রাসুলুল্লাহ (স) দ্ব্যর্থহীন কন্ঠে ঘোষনা করেছেন যে, নাককাটা হাবশীকেও যদি নেতৃত্বের পদে সমাসীন করা হয়, তাহলে তার চেহারা-সুরত, তার বংশ গোত্রগত মর্যাদা, তার আচার-ব্যবহার, রীতি-নীতি, তার রুচি, অনুভূতি ও আবেগ যতই পৃথক ও বিশিষ্ট হোক না কেন এবং এজন্য তা কোন ব্যক্তির নিকট চরম অপ্রিয় হলেও তার পূর্ণ আনুগত্য অপরিহার্য। রাসুলুল্লাহ (স) একথাও বলেছেন যে, আমীরের এই আনুগত্যের এই দাবীকে যারা অস্বীকার করবে, তারা বিপুল তাকওয়ার অধিকারী হলেও আখেরাতে তাদের সাফল্যের কোন সম্ভবনা নেই। তিনি বলেছেনঃ
“যে ব্যক্তি আমীরের আনুগত্য থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে সে কেয়ামতের দিন আল্লাহর সাথে এমন অবস্থায় সাক্ষাৎ করবে, যখন (নিজেকে ন্যায়সঙ্গত প্রমাণ করার জন্য) তার নিকট কোন দলিল প্রমাণ থাকবে না।”

এই সংক্ষিপ্ত আলোচনা থেকে এ কথা আন্দাজ করা যেতে পারে যে, ইসলামী দল ও সংগঠনের পরিচালক ও নেতৃবৃন্দ সাধারণ দুনিয়াপরস্ত রাজনৈতিক দলসমূহের সভাপতি, সহ-সভাপতি ও তাদের উপদেষ্টাগণের সমপর্যায়ভূক্ত নন।বরং এখানে পরিচালকবৃন্দ ও কেন্দ্রীয় কার্যকরী পরিষদের সদস্যগন একটি বিশেষ দ্বীনি শরিয়তভিত্তিক মর্যাদার অধিকারী হন।তাদেঁর অধিকার ও কর্তব্যসমূহও সাময়িক সুযোগ-সুবিধার ভিত্তিতে নয় বরং দ্বীন ও শরিয়তের ভিত্তিতে নির্ধারিত হয়। এ কারনে তাঁদের আনুগত্যের ব্যাপারটি ঠিক সাধারন রাজনৈতিক দলসমূহের নেতৃবৃন্দের আনুগত্যের সমপর্যায়ভুক্ত নয়।

যতক্ষণ নেতৃবৃন্দ কুরআন ও সুন্নাহর পথ থেকে প্রকাশ্যভাবে সরে না দাড়ান ততক্ষণ তাঁদের নির্দেশ লংঘন করা অথবা সানন্দে ও সাগ্রহে তাঁদের আনুগত্য করার পরিবর্তে অসন্তুষ্ট চিত্তে আনুগত্য করা, অথবা তাঁদের কল্যাণ কামনা করার পরিবর্তে তাঁদের প্রতি হিংসা-বিদ্বেষ করা, তাঁদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা, তাঁদের গীবত করা, তাদের বিরুদ্ধে অসন্তোষ সৃষ্টি করা, তাঁদেরকে যথার্থ অবস্থা ও ঘটনাবলী সম্পর্কে অবগত না করা, সঠিক পথে চলার জন্য নির্ভুল পরামর্শ দানের ব্যাপারে কার্পণ্য করা এবং তাঁদের গোপন কথাসমূহ প্রকাশ করে বেড়ানো কবীরা গুনাহর অর্ন্তভূক্ত হবে। এগুলো এমন পর্যায়ের কবীরা গুনাহ যে, এগুলোর কারণে ইবাদত-বন্দেগী অনুষ্ঠান ও সাধারণ চরিত্র সংশোধন সত্ত্বেও মানুষের আখেরাত বিনষ্ট হতে পারে। এই ভয়াবহ অবস্থা মানুষকে মুনাফেকীর পর্যায়ে নামিয়ে দিতে পারে। তাই ইসলামী দল ও সংগঠনের মধ্যে অবস্থানকারীদের আনুগত্যের ব্যাপারে অত্যন্ত সতর্ক হতে হবে।

২। ইসলাম অবশ্য কখনো অন্ধ আনুগত্যের দাবী করেনি। বরং সে কেবল সৎকর্মের ক্ষেত্রে আনুগত্য চেয়েছে। ‘সৎকর্মেও’ সীমার বাইরে তার নির্দেশ হচ্ছেঃ وَلاَ تَعـاَوَنـُوا عَـلَـىَ الاِثـمِ وَالـعُـدوَانِ-
“গুনাহ ও আল্লাহর নির্ধারিত সীমালঙ্ঘনমূলক কাজে পরস্পরের সহযোগী হয়ো না।”-সুরা মায়েদা, আয়াতঃ ২

ইসলামী দল ও সংগঠনের আভ্যন্তরীন তাগিদেই তার সদস্যবৃন্দকে দলীয় কার্যাবলীর প্রতি কঠোর দৃষ্টি রাখতে হবে। এবং দলের পরিচালকগণকে সৎকর্মের সীমার বাইরে কদম রাখা থেকে বিরত রাখতে হবে। এ সম্পর্কে হযরত ওমর (রাঃ) বলেছেনঃ “বন্ধুগণ! তোমাদের কেউ যদি আমার নীতি বা কাজে বক্র দেখে তাহলে আমার এই বক্রতাকে সোজা করে দেওয়া তার কর্তব্য হয়ে দাড়াবে।”

এই প্রসঙ্গে কোন খুঁটিনাটি বিরোধ দেখা দিলে, তা দূর করার জন্য তাকে পেশ করার, সে সম্পর্কে আলোচনা করার এবং সন্তোষজনক প্রত্যুত্তর না পেলে তার উপর অবিচল থাকার শরিয়ত ভিত্তিক অধিকারও দলের সদস্য বর্গের আছে। কিন্তু পরিচালক বৃন্দের থেকে যে সিদ্ধান্ত কার্যকরী হয়, একমাত্র তারই আনুগত্য করতে হবে। আমার মতের বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত গৃহীত হলো কেন? এবং আমি যে দৃষ্টিতে অবস্থা পর্যবেক্ষণ করি সে দৃষ্টিতে অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হয়নি, নিছক এতটুকু কারণে আনুগত্য অস্বীকার করা যেতে পারে না। আনুগত্যের শৃঙ্খলা একমাত্র তখনই ছিন্ন করা যেতে পারে যখন রাসুলুল্লাহর (স) ভাষায় ইসলামের পথ ছেড়ে পরিস্কাভাবে অন্যপথ অবলম্বিত হয়।

দায়িত্বশীল ব্যক্তিদেরকে হক পথে রাখার জন্য তাঁদের সমালোচনা করাও কর্মীদের একটি মৌলিক অধিকার। কিন্তু অন্যান্য দলে সন্দেহ ও সংশয়ের ভিত্তিতে সমালোচনা করার নীতি স্বীকৃত হলেও ইসলামী দলের জন্য এ নীতি অনৈসলামিক বলে বিবেচিত হবে। ইসলামী দলে সমালোচনা হয় সু-ধারণার ভিত্তিতে। এখানে আপত্তি ও অভিযোগের পরিবর্তে কল্যাণ কামিতা ও সৎপরামর্শের সূর ধ্বণিত হয়। ইসলামী জামায়াতের সাথে সমালোচনায় কেবল এমন পদ্ধতিই খাপ খেতে পারে যেখানে সমালোচকের মনে কোন প্রকার তিক্তভাব থাকে না এবং শ্রোতার মনেও সমালোনা বিরক্তি উৎপাদন করে না, যেখানে সমালোচনার সাথে কোন প্রতিশোধ স্পৃহা শামিল থাকে না এবং যেখানে নিজের কথাকে স্বীকার করিয়ে নেবার জিদের প্রভাব থাকে না এবং সমালোচনা গ্রহণ না করার ফলে সমালোচক দুঃখিত বা বিরক্ত হয় না। উপরন্ত ইসলামী দলে সমালোচনা হয় মুখোমুখি, সামনা সামনি; পিছনে গিয়ে সমালোচনা নয়, গীবত হয়। গীবত ইসলামী দলের প্রতি পয়লা নম্বরের অনিষ্টকারিতার পরিচায়ক। অথচ সমালোচনা তার সর্বোত্তম কল্যাণ কামনার পরিচয় বহন করে। এ দুয়ের মধ্যে আসমান-জমীন তফাৎ।

আমাদের সংগঠনের প্রকৃতিই হচ্ছে এই যে, এখানে দায়িত্বশীলদের যত অধিক দ্ব্যর্থহীন সমালোচনা হয় ততই তা আন্দোলনের জন্য কল্যাণকর হয়। কিন্তু পরিচালকদের সম্পর্কে বিদ্রুপাত্মক শব্দ উচ্চারণ করা, তাঁদের মর্যাদার পরিপন্থী বাক্য ব্যবহার করে মনের ঝাল ঝাড়া, তাঁদের ব্যাপার নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা করা অথবা তঁদের দুর্বলতা উল্লেখ করে আনন্দ উপভোগ করা অবশ্যই ইসলামী চরিত্রনীতির পরিপন্থী।

সমালোচনা অধিকারের ওপর কোন আইনের বাঁধন না থাকার কারণে তাকে একটি স্থায়ী কর্মে পরিনত করা, পরিচালকবৃন্দের প্রতিটি নির্দেশ, কর্ম ও সিদ্ধান্তের এবং তাঁদের প্রতিটি কথার সমালোচনা শুরু করে দেওয়া এবং তাঁদের নির্দেশের পক্ষে পূর্ণাঙ্গ যুক্তি প্রমাণ পেশ করার দাবী করাও বিপর্যয়ের কারণ হয়ে দাড়ায়। এ অবস্থা সৃষ্টি হবার পর এক ব্যক্তি কোন দায়িত্ব গ্রহণ করে একদিনও চলতে পারে না। অতঃপর দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা দলের সাধারণ সদস্যদের সম্মুখে বসে কেবল জবাবদিহিই করতে থাকবে এবং তাদের আস্হা পূণর্বহাল করার জন্য নিজেদের প্রতিটি বাক্য ও কর্মের বিস্তারিত ব্যাখ্যা করে তাদেরকে বুঝাতে থাকবে যে, এর মধ্যে অভিযোগ করার মতো তেমন কোন বিষয় নেই। এ কথাগুলি সম্মুখে রেখে চিন্তা করলে সহজেই উপলব্ধি করা যাবে যে, দায়িত্বশীলদের সমালোচনার ব্যাপারে ন্যায় সংগত পন্থা অবলম্বন করতে হলে যথেষ্ট সতর্ক হতে হবে। আর এ ব্যাপারে সতর্ক না হলে সমালোচনার অধিকারকে অন্যায়ভাবে ব্যবহার করে কর্মীরা সংগঠনের জন্য মারাত্মক ক্ষতিতে পরিণত হতে পারেন এবং এর ফলে তাদের নিজেদের পরিণামও হতে পারে অত্যন্ত ভয়াবহ।

অন্যায় সমালোচনার একটি বড় আলামত হচ্ছে এই যে, তা আনুগত্যের পথে বাঁধা সৃষ্টি করে। কোন ব্যক্তি এ পথে পা বাড়াবার পর প্রকাশ্য অন্যায় আচরণে লিপ্ত হয়। কাজেই আনুগত্য ও সমালোচনার পৃথক পৃথক সীমানা রয়েছে এবং নিজেদের সীমানার মধ্যেই তাদের অবস্থান করা উচিত। আল্লাহর নাফরমানী ছাড়া আর কোন বস্তু আনুগত্যকে খতম করতে পারে না।

৩। ব্যক্তির পরিবর্তনের কারণে আনুগত্য ব্যবস্থাকে মেনে চলার ক্ষেত্রে কোন প্রকার পরিবর্তন আসতে পারে না। হতে পারে, কোন আন্দোলনের ব্যাপকতর অবস্থায় দায়িত্ব গ্রহণকারী একটি বড় দলের ব্যক্তিবর্গের মধ্যে কতক উচ্চমানের, কতক নিম্নমানের, কারুর জ্ঞান অধিক, কারুর তাকওয়া অধিক, কেউ বর্তমান যুগের বিশেষ বিষয়সমূহে অধিক পারদর্শী, কেউ প্রথম যুগের অবস্থা সম্পর্কে গভীর জ্ঞান রাখেন, কেউ নির্দেশাবলীর বাহ্যিক বিষয়সমূহ সম্পর্কে অধিক অবগত, আবার কেউ নির্দেশাবলীর আভ্যন্তরীণ তত্ত্বজ্ঞানের অধিকারী, কারুর নিকট আন্দোলনের একটি দিক অধিক গুরুত্বপূর্ণ, আবার কারো নিকট অন্য একটি দিকও গুরুত্বের অধিকারী। আবার এমনও হতে পারে যে, কারুর মেজাজ একটু কঠোর, কারুর কোমল, কেউ অত্যাধিক নিঃসংকোচ ভাবকে পছন্দ করেন আবার কেউ একটু ভরিক্কি ধরণের গাম্ভীর্যপূর্ণ ব্যবহারে অভ্যস্ত, কেউ অত্যধিক বাকপটুতাকে পছন্দ করেন, আবার কেউ নীরবে কাজ করার পক্ষপাতি।

এছাড়াও পোশাক-পরিচ্ছদ, আহার-বিহার, চলা-ফিরা, উঠা বসা প্রভৃতি জীবনের বিভিন্ন ব্যাপারে বিভিন্ন ব্যক্তির রুচি বিভিন্ন হতে পারে। ব্যক্তিগত রুচি, প্রকৃতি ও প্রবণতা একটি দলীয় ব্যবস্থার সামগ্রিক নীতির ঐক্য সত্ত্বেও একটি বিশেষ পর্যায় পর্যন্ত নিজের কাজ করে থাকে। এই পার্থক্য ও বিভিন্নতার কারণে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের অবস্থার মধ্যে এমন কোন পার্থক্য সূচিত হয় না, যার ফলে তাঁদের আনুগত্যের অধিকারের মধ্যে কম-বেশী করা যেতে পারে এবং তাঁদের মধ্যে কোন রদবদল হলে লোকেরা অনুসন্ধানে প্রবৃত্ত হতে পারে যে, অমুক ব্যক্তির মধ্যে যে রুচি ও মননশীলতা ছিল তা অমুক ব্যক্তির মধ্যে নেই কেন? কোন এক ধরণের ব্যবহার ও কর্মপদ্ধতিতে অভ্যস্ত হয়ে ওঠার পর যদি কোন রদবদল অনুষ্ঠিত হয় তাহলে মনের মধ্যে অস্থিরতা দেখা দেয় এবং কর্মের গতি মন্থর হয়ে পড়ে। এই অনাসৃষ্টির দূয়ার বন্ধ করার জন্য রাসূলুল্লাহ (স) হেদায়েত দিয়েছিলেন যে, একজন নাককাটা হাবশীকেও যদি তোমাদের ইমাম করা হয় তাহলে তাঁর নির্দেশ শ্রবণ করো এবং তাঁর প্রতি পূর্ণ আনুগত্য করো। এক্ষেত্রে তাঁর চেহারা সুরত লেবাস-পোশাক রুচি প্রকৃতির দিকে দৃষ্টিপাত করো না। দায়িত্বশীলদের ব্যক্তিগত রুচি, প্রকৃতি সকল দিক দিয়ে অনুগতদের চাহিদানুযায়ী হবে, এ বিষয়টির উপর শরিয়ত আনুগত্যকে নির্ভরশীল করেনি।

ইসলামী আন্দোলন ব্যক্তিত্বের চর্তুদিকে আবর্তিত হয় না। বরং এ আন্দোলন এক সময় রাসূলুল্লাহর (স) নেতৃত্বে চলতে থাকে এবং অন্য সময় হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রা) কুরআনের এ বাণী-
وَمَا مُحَمّدٌ اِلاَ رَسـولٌ مِن قـَـبلـِهِ الـرّسـَلُ اَفَـائـن مـَاتَ اَوقُـتـِلَ انـقـَلَـبـتـُم عَـلـَيَ اَعـقـَاَبِـكُـم-
সূরা আলে ইমরান, আয়াতঃ১৪৪

(অর্থাৎঃ “মুহাম্মদ (স) একজন রাসূল মাত্র ছিলেন। তাঁর পূর্বে আরো বহু রাসূল অতিক্রান্ত হয়েছেন, যদি তিনি মরে যান বা নিহত হন তাহলে কি আবার তোমরা পিছনের দিকে ফিরে যাবে?”) উচ্চারণ করে অগ্রসর হন এবং আন্দোলনের নেতৃত্ব গ্রহন করেন। তারপর হযরত ওমর (রা) এর ন্যায় কঠোর হৃদয়ের ব্যক্তি নেতৃত্ব লাভ করেন। অতঃপর হযরত উসমানের (রাঃ) মত কোমল হৃদয়ের সহনশীল ব্যক্তি এ দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তারপর হযরত আলী (রাঃ) তাঁর বিশেষ গুনাবলীসহ এ আন্দোলনের নেতৃত্ব দান করেন। এই সমস্ত হাত বদলের মধ্যে অবশ্যই আনুগত্য ব্যবস্থার অপরিহার্যতা বহাল থাকে এবং এ ব্যবস্থা ভঙ্গ করা হামেশা কবীরা গোনাহর অর্ন্তভূক্ত থাকে।

মনে রাখবেন, আমাদেরকে ব্যক্তিত্বকে সম্মুখে রেখে শৃঙ্খলার আনুগত্য করার জন্য নয় বরং শরীয়ত বিভিন্ন দায়িত্বকে যে মর্যাদা দান করেছে তাকে সম্মুখে রেখে শৃঙ্খলার আনুগত্য করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কাজেই প্রয়োজন ও পরিস্থিতি অনুযায়ী প্রতিদিন ব্যক্তি বদল হতে থাকলেও, আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (স) আমাদের উপর দায়িত্বশীলদের যে সকল অধিকার দান করেছেন পূর্ণ সততার সাথে আমাদের সেগুলি আদায় করা উচিত।

৪। এ পর্যন্ত কেবল কর্মীদের দায়িত্ব বিবৃত করা হয়েছে। এদের তুলনায় কর্তৃত্বশীলদের দায়িত্ব অনেক বেশী নাজুক প্রকৃতির। কর্তৃত্বশীলগণ তাঁদের দায়িত্ব পুরোপুরি পালন না করা পর্যন্ত কর্তৃত্ব ও আনুগত্য ব্যবস্থার মধ্যে ভারসাম্য বজায় থাকতে পারে না। কর্মীদের মোকাবেলায় নেতাদের পরকালীন জবাবদিহিও অনেক কঠিন হবে। দুনিয়ায় ইসলামী আন্দোলনের সাফল্যের সিংহভাগও তাঁদের সঠিক ও যথার্থ কর্মের উপর নির্ভর করে। কর্মীরা তখনই যথার্থ আনুগত্য করতে পারে যখন নেতৃবৃন্দ তাঁদের নিজেদের অংশের কর্তব্য অর্থাৎ কর্তৃত্বের ব্যাপারে তাঁদের নিজেদের দায়িত্ব পুরোপুরি আদায় করে। এ ব্যাপারে নিম্নলিখিত আয়াতটি থেকে চমৎকার নির্দেশ পাওয়া যায়। এখানে আল্লাহতায়ালা রাসূলুল্লাহর (স) কর্তৃত্বের স্বরূপ নিন্মোক্ত ভাষায় ব্যক্ত করেছেনঃ
فـَـبِمَـا رَحـمـَةٍ مَّنَ اَللهِ لِـنـتَ لـَهـُم وَلـَو كَـنـتَ فـَظـاًّ غَـلـِظَ الـقـَلـبِ لاَنـفتَضـُّوا مِن حَـولِــكَ فـَاعـفُ عَـنـهُـم وَاسـتـَغـفـِرلَـهُـم وَشَـاوِرهُـم فِـى الاَمـرِ فَـاِذاَ عـَزَمـتَ فـَتـَوَكّـل عَـلـَىَ اللهِ اَِنَّ اَللهَ يُـحِـبُّ الـمُـتـَوَكّـِلـِيـنَ-
“এটা একমাত্র আল্লাহর অনুগ্রহ যে, আপনি এদের (মুসলমানদের) প্রতি কোমল। যদি আপনি কঠোর ভাষী ও তিক্ত মেজাজ সম্পন্ন হতেন, তাহলে এরা আপনার চারপাশ থেকে বিক্ষিপ্ত হয়ে যেতো। কাজেই এদের ত্রুটিকে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখুন, এদের জন্য সাফায়াত চান এবং বিভিন্ন বিষয়ে এদের সাথে পরামর্শ করুন। অতঃপর পরামর্শের পর যখন কোন বিষয়ে দৃঢ় সংকল্প হয়ে যায়, তখন আল্লাহর উপর ভরসা করুন। নিশ্চয়ই আল্লাহ (তাঁর উপর) ভরসাকারীদের ভালবাসেন।” -সূরা আলে ইমরান, আয়তঃ১৫৯

এই আয়াতে রাসূলুল্লাহর (স) আনুগত্যকারী প্রত্যেকটি কর্তৃত্বশীল ব্যক্তির জন্য এমন একটি মৌলিক বিধান দান করা হয়েছে যার অনুপস্থিতিতে কোন দলীয় শৃঙ্খলা যথাযথভাবে প্রতিষ্ঠিত থাকতে পারে না। সংগঠনের অর্ন্তভূক্ত প্রত্যেকটি ব্যক্তিকে এই আয়াতের আলোকে যে সমস্ত বিষয়ের অনুগত থাকা উচিত এবং যে বিষয়কে সম্মুখে রেখে নিজের স্বভাব-চরিত্র মেজাজ গড়ে তোলা উচিত তা নিম্নে বর্ণিত হলোঃ

ক. ব্যক্তি যেন কোন প্রকার বড়-ছোট, উঁচু-নীচু ভেদাভেদ অনুভব না করে। এ পরিবেশ যেখানে নেই সেখানে কর্তৃত্বশীল ও অনুগতদের মধ্যে মানসিক, আন্তরিকও বৈঠকী ব্যবধান সৃষ্টি হয় এবং সহযোগিতার প্রাণশক্তি দুর্বল হয়ে পড়ে। এ মহা সত্যটিকে আল্লামা ইকবাল তাঁর কবিতায় এভাবে বর্ণনা করেছেনঃ

কাফেলার সারি হতে
বিচ্ছিন্ন হলো কেউ,
সংশয়িত হলো কেউ
হারেমের প্রতি,
কেননা ব্যবহার প্রীতিপূর্ণ নয়
আমাদের কাফেলা সালারের।

সংশ্লিষ্ট আয়াতটি এই প্রীতিপূর্ণ ব্যবহারই দাবী করে।

এই প্রীতিপূর্ণ ব্যবহারের অর্থ এই নয় যে, দায়িত্বশীল ব্যক্তি কোন ব্যাপারে কঠোর হবেন না, কোন ভুলত্রুটির জন্য কৈফিয়ত চাইবেন না, কোন অন্যায় কাজে বাঁধা দিতে পারবেন না, উপরন্তু প্রত্যেকটি কর্মীর তোষামোদ করে ফিরবেন। বরং পরিস্থিতি ও পরিবেশ অনুযায়ী কোথাও কঠোর নীতি অবলম্বন করার প্রয়োজন হলে সেখানে তা না করলে আন্দোলনের জন্য ক্ষতিকর হবে। আদর্শ, উদ্দেশ্য ও শৃঙ্খলার খাতিরে দায়িত্বশীলদেরকে কখনো কখনো সহযোগীদের সাথে আদেশের সুরে কথা বলতে হয়, কাজ আদায় করতে হয়। কিন্তু সে আদেশে থাকবে স্নেহ প্রীতির প্রাণ প্রবাহ। তার বাইরের কঠোরতা নেহায়েত একটা খোলস বৈ আর কিছুই নয়।

খ. দায়িত্বশীলগন সকল সহযোগীর উঠা-বসা, চাল-চলন, আচার-ব্যবহার, হাব-ভাব প্রভৃতি গভীরভাবে নিরীক্ষণ করার সুযোগ পান। কাজেই তাদের অনেক দোষ-ত্রুটি, দুর্বলতা, গলদ তাঁদের সম্মুখে থাকে। হয়ত কেউ কর্তব্য পালনে গাফলতি করেছে, কেউ আন্দোলনের বিরোধীদেরকে কোন অপ্রীতিকর কথা বলেছে, কেউ ত্রুটিপূর্ণ আবেগ প্রকাশ করেছে, কেউ সর্বসমক্ষে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ গোপন কথা প্রকাশ করে দিয়েছে, কেউ নিজের সহযোগী বা অন্যের সাথে অন্যায় আচরণ বরেছে, কেউ গীবত করেছে, কেউ কারুর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে।

এ সমস্ত বিষয় সামনে থাকার কারণে মানুষের মনে কুধারণা, তিক্ততা ও বিরক্তি সৃষ্টি না হয়ে পারে না। এ ধরণের দুর্বলতা দেখে ধীরে ধীরে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের মন বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিদের সম্পর্কে এবং নিজেদের সমগ্র দলটি সম্পর্কেও তিক্ত হয়ে ওঠে। তখন কঠোর কিন্তু কর্কশ ব্যবহার ও কথাবার্তার মাধ্যমে এক ধরণের বিরক্তি ফুটে উঠতে থাকে। এর ফলে মন ভেঙ্গে যায়, সন্দেহ-সংশয়ের পরিধি বেড়ে যায় এবং কর্তৃত্ব ও আনুগত্যের বাঁধন ঢিলে হতে থাকে। পূর্বোল্লেখিত আয়াতটি এ ব্যাপারে সতর্কবাণী উচ্চারণ করে। এর মাধ্যমে কর্তৃত্বশীলদেরকে শিক্ষা দেয়া হয়েছে ঃ নিজের সহযোগীদের দুর্বলতাগুলি দেখো এবং সেগুলি মাফ করে দাও, এজন্য মনকে কলুষিত করো না এবং নিরাশ হয়ো না। কারণ বিভিন্ন মানুষের মধ্যে বিভিন্ন প্রকার দুর্বলতা আছে। অনেক প্রচেষ্টা, মেহনতের পর ধীরে ধীরে এগুলি দূরীভূত হয়। কেবল তাদেরকে মাফ করে দেওয়াই যথেষ্ট নয় বরং স্নেহ প্রীতির তাগিদে অনুপস্থিতিতে তাদের জন্য আল্লাহর কাছে মাগফেরাত চাইতে হবে। এটিই হচ্ছে পারস্পরিক প্রীতির সম্পর্ক শক্তিশালী করার সর্বত্তোম উপায়।

গ. ‘আর বিভিন্ন বিষয়ে তাদের সাথে পরামর্শ করো’-নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের সময়ে সময়ে এবং প্রয়োজনবশতঃ নিজেদের বিভিন্ন সহযোগীর সাথে তাদের বুদ্ধি-বিচক্ষণতা, জ্ঞান ও তাকওয়া অনুযায়ী পরামর্শ করা উচিত। পরামর্শের মাধ্যমে পারস্পরিক আস্থা বৃদ্ধি পায়, সন্দেহ-সংশয় দূরীভূত হয় এবং সিদ্ধান্তকে কার্যকরী করা সহজ হয়।

পরামর্শ করা অবশ্যই ফরজ। যে ব্যাপারে যে সহযোগী সঠিক পরামর্শ দেয়ার যোগ্যতা রাখে সে ব্যাপারে তার সাথে পরামর্শ করাই হচ্ছে আল্লাহর নির্দেশ। প্রত্যেক ব্যাপারে প্রত্যেক ব্যক্তির সাথে পরামর্শ করা জরুরী নয় বরং যে ব্যক্তির সাথে পরামর্শ করা সঙ্গত তার সাথে অবশ্য সে ব্যাপারে পরামর্শ করা উচিত। অনেক সময় বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিদের সাথে, অনেক সময় কেবল নির্বাচিত ‘কার্যকরী পরিষদ’এর সাথে আবার অনেক সময় সাধারণ সদস্য ও সহযোগীদের সাথে পরামর্শ করা, অতঃপর তাদের মতামত সম্পর্কে চিন্তা ও বিচার-বিশ্লেষন করা দ্বীনকে প্রতিষ্টিত করার প্রচেষ্টা ও সংগ্রামকে শক্তিশালী করে। উপরন্তু এর সাহায্যে দলীয় সংগঠন মজবুত হয়। পরামর্শের মাধ্যমে বিভিন্ন মন মস্তিষ্কের মিলন ঘটে, তাদের মধ্যে ঐক্য সংস্থাপিত হয় এবং তারা বিভিন্ন বিষয়ে গৃহীতব্য সিদ্ধান্তকে কার্যকরী করার প্রস্তুতি গ্রহণ করে।

ঘ. কর্তৃত্বশীলদের জন্য আল্লাহ তায়ালা এই আয়াতের মধ্যে যে সর্বশেষ নির্দেশ দিয়েছেন, তা হচ্ছে এই যে, প্রয়োজনীয় পরামর্শের পর যখন কোন বিষয়ে স্থির সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় তখন একাগ্রচিত্তে তার উপর দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত থাকা উচিত। একটি দলের দায়িত্বশীলদের প্রতিদিনকার বিভিন্ন বিক্ষিপ্ত বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবার পরও মতবিরোধের সম্মুখীন হতে হয় এবং অনাবরত নতুন নতুন মতামত তাঁদের সম্মুখে আসতে থাকে। কিন্তু স্থিরীকৃত বিষয়ে যদি বরাবর রদবদল করা হয় তাহলে সে ব্যাপারে সাফল্যের সাথে কোন একটি দিকে অগ্রসর হওয়া সম্ভব নয় বরং উল্টা দায়িত্বশীলদের মনে ইতস্তত ও চিন্তার নৈরাজ্য সৃষ্টি হয়। এর ফলে দলের সামগ্রিক নীতিও স্থায়ী অস্থিরতার শিকার হয়। এ সমস্ত কারণে যথারীতি একটি পরিণতিতে পৌছে যাবার পর আল্লাহ তায়ালা পরামর্শদানকারী ব্যক্তিদেরকে স্থিরীকৃত বিষয়সমূহ মেনে নিয়ে নিজেদের বাস্তব দায়িত্ব পালনে উদ্বুদ্ধ করতে চেয়েছেন।

৫। কর্তৃত্ব ও আনুগত্য সম্পর্কে আরো বক্তব্য হচ্ছে এই যেঃ

ক. বিভিন্ন দায়িত্বশীল ব্যক্তির পক্ষ থেকে যে সমস্ত সার্কুলার ও নির্দেশনামা জারি করা হয় সাধারণত সেগুলির আনুগত্যের ব্যাপারে শরিয়ত নির্ধারিত অপরিহার্যতার অনুভূতি কিছুটা দুর্বল। এই সার্কুলার ও নির্দেশগুলিকে সম্ভবত অফিস-আদালতের মামুলি সার্কুলার মনে করা হয়। অথচ যখনই কোন সার্কুলার জারি করা হয় তার অবস্থা হয় ঠিক ‘আমর বিল মারুফ’ (সৎকর্মের আদেশ দান)-এর সমতুল্য। এ ব্যাপারে ‘উলিল আমরের (কর্তৃত্বশীলদের) আনুগত্যকে অপরিহার্য গণ্য করা হয়েছে। সার্কুলারগুলির প্রতিটি শব্দ সম্পর্কে ভালভাবে চিন্তা করা উচিত এবং যে বন্দেগীর প্রেরণা নিয়ে শরয়িতের সমস্ত বিধি-নিষেধ পালন করা হয় সেই প্রেরনা সহকারে যথাসময়ে সেগুলিকে কার্যকরী করার জন্য নিজের সমগ্র শক্তি নিয়োগ করা উচিত।

খ. সভায় উপস্থিতির জন্য যে সময় নির্ধারিত করা হয়, কোন ডিউটিতে পৌছাবার জন্য যে সময়-কাল স্থিরীকৃত হয়, অনুরুপভাবে কোন সংবাদ বা রিপোর্ট পৌছাবার বা কোন হুকুম তামিল করার জন্য যে পদ্ধতি বা সময় নির্ধারিত হয়, তা যথাযথভাবে মেনে চলার যোগ্যতা এখনো আমাদের মধ্যে সৃষ্টি হয় নি।

লোকেরা এখনো এ দায়িত্ব পুরোপুরি উপলব্ধি করতে পারছে না যে, তাদের প্রত্যেকেই একটি ঘূর্ণায়মান মেশিনের কলকব্জা স্বরূপ এবং প্রতিটি কলকব্জা যদি নির্ধারিত দায়িত্ব পালন করতে বিলম্ব করে অথবা অনিয়ম করে তাহলে সমগ্র মেশিনটাই যথাসময়ে কাজ করতে ব্যর্থ হবে। এ পঙ্গুত্বসহ আমরা কোন বড় অভিযানে সফল হতে পারবো না। কাজেই আমাদের প্রত্যেকেরই সংগঠন-মেশিনের কলকব্জার ন্যায় যথা নিয়মে কাজ করার জন্য নিজেদেরকে তৈরী করা উচিত।

গ. কর্তৃত্ব ও শৃঙ্খলা ব্যবস্থার আনুগত্যে ত্রুটি-বিচ্যুতি যে একটি গোনাহর শামিল উপরের আলোচনায় এ কথা সুস্পষ্ট করার চেষ্টা করা হয়েছে। এজন্য সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছে আমাদেরকে জবাবদিহী করতে হবে। কিন্তু মনে হয়, এ ধরণের ত্রুটি সম্পর্কে কৈফিয়ত তলব করলে সহযোগীরা কিছুটা লজ্জিত হয় ঠিকই, তবে এ জন্য তাদের মধ্যে সাধারণভাবে যে ধরণের গুনাহর অনুভূতি হওয়া দরকার তা হয় না। দলীয় শৃঙ্খলার আনুগত্যে ত্রুটি করা-মিথ্যা বলা, কাউকে গালি দেয়া, ওয়াদা ভঙ্গ করা, কারুর অধিকার আত্মসাৎ করা, চুরি করা, গীবত করা, মিথ্যা সাক্ষী দেয়া এবং এ ধরণের অন্যান্য বড় বড় অপরাধের চাইতে কম পর্যায়ের নয়। কিন্তু বড়ই আশ্চ্যর্য ব্যাপার ব্যক্তিগত চরিত্রের নীতি বিরোধী উপরোল্লেখিত কাজগুলি করার সঙ্গে সঙ্গেই মনে খটকা লাগে এবং আল্লাহর নিকট তওবা ও ইস্তেগফার করার প্রেরণা জাগে, অথচ দলীয় চরিত্রনীতি বিধ্বস্ত হবার পর এমন গোনাহগারীর কোন অনুতাপের ভাব মনের মধ্যে সৃষ্টি হয় না যার ফলে সঙ্গে সঙ্গেই তওবা ও ইস্তেগফার করে নিজের কার্যাবলী সংশোধন ও ক্ষতিপূরণ করা যেতে পারে।

দলীয় চরিত্রের মূল্য ব্যক্তিগত চরিত্রের চাইতে অনেক বেশী। এ জন্যই দলীয় চরিত্রে দুর্বলতার প্রকাশ বৃহত্তর গোনাহ। আমাদের সহযোগীদের এ বিষযটি অনুভব করা উচিত। আরো যদি সংগঠন কর্তৃক অর্পিত কোন দায়িত্ব সম্পাদন করতে, কোন কাজের জন্য সময় বের করতে, কোন নির্দিষ্ট স্থানে যথাসময়ে পৌঁছতে অথবা অন্যদিকে দায়িত্বশীলদের অধিকার আদায় করতে, তাঁদের কল্যাণ কামনার দাবী পূরণ করতে, সঠিক সমালোচনা পদ্ধতি অবলম্বন করতে, পরামর্শ ও তথ্যদান করতে, গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার আদায় করতে বা দায়িত্বশীলদের নির্দেশ যথাযথভাবে পালন করতে কোন প্রকার ত্রুটি করে; তাহলে এমনি ধরণের প্রত্যেকটি ত্রুটির পর আমাদের মনে চরম লজ্জানুভূতি সৃষ্টি হওয়া প্রয়োজন। এমন লজ্জানুভূতি সৃষ্টি হবে যা আমাদের তওবা ইস্তেগফারের দিকে ঝুঁকিয়ে দিবে, রাব্বুল আলামীনের সম্মুখে আমাদের দীনতার শির নত করে দিবে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃত্বশীল বা সহযোগীদের নিকট ওজর পেশ করা ও ক্ষমা চাওয়ার জন্য আমাদের মধ্যে অধিকতর কর্মতৎপরতা সৃষ্টি করবে এবং আমাদের আল্লাহর পথে অর্থ ব্যয় করার প্রেরণা জাগাবে।
আমাদের মধ্যে এ গুণ সৃষ্টি না হলে ইসলাম নির্ধারিত পথে নিজেদের সংগঠন ও শৃঙ্খলার বিকাশ সাধনও আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়।

ঘ. কর্তৃত্ব ও আনুগত্যের উপরোল্লেখিত দাবীসমূহ পূরণ করার জন্য নিছক আবেদন বা কতিপয় গণতান্ত্রিক ও শাসনতান্ত্রিক ধারা যথেষ্ট নয়। বরং একমাত্র সহযোগীদের দায়িত্বানুভূতিই এ দাবীগুলির পূর্ণতার ধারক হতে পারে। যদি প্রত্যেক সহযোগী আন্দোলনের সাথে সম্পর্ক কায়েম করে মু’মনিদেরকে সাক্ষী রেখে আল্লাহর নিকট যে অঙ্গীকার করেছে তা সব সময় মনের মধ্যে জাগরুক রাখে, তাহলে তাদের মাঝে এ দায়িত্বানুভূতি জাগ্রত থাকতে পারে। এই অনুভূতির তাগিদে প্রত্যেক সহযোগীকে এ কথা মনে রাখা দরকার যে, সংগঠন শৃঙ্খলা হচ্ছে আল্লাহ ও তার রাসূলের পক্ষ থেকে একটি আমানত এবং তার সাথীদের ন্যায় তাকেও এর প্রহরায় ও রক্ষনাবেক্ষনে নিযুক্ত করা হয়েছে। এটি একটি মহামূল্যবান আমানত। এই আমানতটিকে অস্তিত্ব দান করার জন্য ইতিহাসের বিভিন্ন যুগে হাজার হাজার শক্তি কাজ করেছে এবং এর পিছনে বহু চিন্তা-গবেষণা, শ্রম, অর্থ, নিদ্রাহীনতা, প্রচেষ্টা, সংগ্রাম ও ত্যাগ রয়েছে। কাজেই কোন ব্যক্তি যদি এই শৃঙ্খলায় কোন প্রকার দুর্বলতা সৃষ্টি করার চেষ্টা করে তাহলে তার হস্তপে থেকে এ আমানতকে রক্ষা করা প্রত্যেক সহযোগীর প্রাথমিক দায়িত্ব। এই দায়িত্ব সম্পাদনে যারাই ত্রুটি করবে তারাই সেই পাহারাদারের ভূমিকা গ্রহণ করবে নিজের কাজে ফাঁকি দেয়।

কাজেই সহযোগীদের উচিত এমন এক পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং এমন একটি ঐতিহ্য সৃষ্টি করার জন্য অবিশ্রাম প্রচেষ্টা চালানো, যার ফলে শৃঙ্খলার উপর প্রভাব বিস্তারকারী কোন ক্ষতিকর বস্তু মাথা উচু করতে না পারে। আর কোন অপ্রীতিকর বস্তু মাথা উঁচু করলেও যেখানে মাথা উঁচু করে সেখানেই যেন তাকে ভালভাবে দাবিয়ে দেয়া যায়। একমাত্র এ পদ্ধতিতেই কর্তৃত্বশালী ও আনুগত্যকারীরা স্ব স্ব স্থানে অবস্থান করে কুরআন ও সুন্নাহর দাবী অনুযায়ী অগ্রসর হতে পারে।



সর্বশেষ আপডেট ( Thursday, 26 August 2010 )